নিউইয়র্কে ‘সাপলুডু’র দর্শক নেই

নির্মাতা গোলাম সোহরাব দোদুলের প্রথম সিনেমা ‘সাপলুডু’ নিউইয়র্কের জ্যামাইকা সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পেয়েছে ২৫ অক্টোবর। সন্ধ্যা সাতটার প্রদর্শনীতে অ্যাকশন থ্রিলারধর্মী এই সিনেমার প্রধান অভিনেতা আরিফিন শুভ উপস্থিত ছিলেন।

কথা ছিল প্রতিদিন ‘সাপলুডু’র চারটি করে শো হবে। কিন্তু দর্শকের অভাবে এখন প্রতিদিন তিনটি শো চলছে। ৩০০ আসনের সিনেমা হলে ২৯ অক্টোবর বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে যে প্রদর্শনী হয়েছে, তাতে টিকিট বিক্রি হয়েছে আটটি, বেলা তিনটার শোয়ে টিকিট বিক্রি হয়েছে নয়টি এবং দিনের সর্বশেষ শো হয়েছে সন্ধ্যা ছয়টায়। এ সময় টিকিট বিক্রি হয়েছে ১৭টি।

‘সাপলুডু’ সিনেমায় বিদ্যা সিনহা মিম, জাহিদ হাসান, তারিক আনাম খান, সালাহউদ্দিন লাভলু, মৌসুমী হামিদ, রুনা খানসহ আরও অনেকে অভিনয় করেছেন।

জ্যামাইকা সিনেপ্লেক্সের বক্স অফিস কর্মকর্তা অ্যারোমাস বলেন, ‘২৫ অক্টোবর আমরা খুব একটা টিকিট বিক্রি করতে পারিনি। ২৬-২৭ তারিখ কিছুটা উন্নতি হয়েছে। ২৮ অক্টোবর আবার খুব খারাপ বিক্রি। প্রদর্শনী প্রতিদিন চারটা হওয়ার কথা থাকলেও দর্শকের অভাবে তিনটা করতে বাধ্য হয়েছি। ২৯ অক্টোবর ১১টা ৫৫ মিনিটে যে প্রদর্শনী হয়েছে, তাতে টিকিট বিক্রি হয়েছে আটটি, বেলা তিনটার শোতে টিকিট বিক্রি হয়েছে নয়টি এবং দিনের সর্বশেষ শো হয়েছে সন্ধ্যা ছয়টায়, তাতে টিকিট বিক্রি হয়েছে ১৭টি।’

সিনেমা দেখতে আসা তরুণী সালমা শাওন জ্যামাইকার বাসিন্দা। তিনি বলেন, ‘আমি আরিফিন শুভর দারুণ ভক্ত। তাঁর নাম শুনেই এসেছি সিনেমা দেখতে। কোনো দর্শক যদি না থাকতেন আমি আমার এই বান্ধবীকে নিয়ে শুভর সিনেমাটি দেখতে আসতাম। তারিক আনাম খান, জাহিদ হাসান ও সালাহউদ্দিন লাভলু অসাধারণ অভিনয় করেছেন। বেশি দর্শক হলে সিনেমাটি দেখতে আরও ভালো লাগত। এই সিনেমা যে নিউইয়র্কে দেখানো হচ্ছে, তা তো কেউ জানে না। কোথাও কোনো পোস্টার লাগানো নেই, টিভি বা পত্রিকায় কোনো খবর বা বিজ্ঞাপন নেই। দর্শক আসবেন কীভাবে?’

সিনেমা দেখে নাট্যকর্মী মোজাম্মেল হক বলেন, ‘সিনেমার গল্পে অসামঞ্জস্যতা, আবহ সংগীতে বাহুল্যতা, অপ্রাসঙ্গিকভাবে যখন-তখন গান, সিনেমার চরিত্রগুলোর পারস্পরিক সম্পর্ক পরিষ্কার বোঝা যায় না। তারপরও সিনেমাটি দেখে আমার ভালো লাগছে, কারণ প্রত্যেকে ব্যাপক অভিনয় করেছেন। “আমার সিনেমা আমেরিকায় দেখানো হয়েছে” এসব কথা বলার জন্য যেন সিনেমাগুলো এখানে প্রদর্শিত না হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।’

সাপলুডু গত ২৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের ৪২টি সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে। বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া প্রযোজিত এই সিনেমাটি আমেরিকায় প্রদর্শন করেছে বায়োস্কোপ ফিল্মস। আমেরিকায় দর্শকশূন্যতার কারণ জানতে বায়োস্কোপ ফিল্মসের কর্ণধার রাজ হামীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো উত্তর দেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *