ছাত্রীর স্ত”নে শিক্ষকের একাধিক বে’ত্রাঘা’ত, হা’সপা’তা’লে শিক্ষার্থী

জুমবাংলা ডেস্ক : ক্লাসে পড়া না পারায় নিজ হাতে ছাত্রীর ইউনিফর্ম তুলে স্প’র্শ’কা’তর জায়গায় বে’ত্রা’ঘা’ত করেছেন এক শিক্ষক। পরে ল’জ্জা’য় অপমানে আ’ত্মহ’’ত্যার চেষ্টা করেছে ওই ছাত্রী। এমনই এক ঘ’ট’না ঘ’টে’ছে রাঙামাটি মডেল কেজি স্কুল অ্যান্ড কলেজে।
শিক্ষার্থীরা জানায়, মঙ্গলবার ক্লাসে পড়া দিতে ভু’ল করেছিল ভু’ক্ত’ভো’গী ওই ছাত্রী। সেদিন অনেকেই পড়া দিয়ে ব্য’র্থ হয়েছিল। শিক্ষক আতাউর রহমান মোটা বেত এনে সবাইকে পি’টি’য়েছিলেন। আতাউর ওই ছাত্রীর ইউনিফর্ম নিজ হাতে তুলে স্প’র্শ’কাতর জায়গায় বে’ত্রা’ঘা’ত করেছিলেন।ছাত্রীরা জানায়, আতাউরের আ’চ’রণ আগে থেকেই ছিল অশালীন। প্রায়ই তিনি ওই ছাত্রীকে বলতেন ‘এমন জায়গায় মা’র’বো কাউকে দেখাতে পারবি না।’

ঘ’ট’নার পর ল’জ্জা’য় অপমানে বাসায় ফিরে মাকে ঘ’ট’নাটা জানিয়েছিল। মা গিয়ে স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক জিল্লুর রহমানকে ঘ’ট’নাটি জানান। কিন্তু ফল হয় উল্টো। সহকারী প্রধান শিক্ষক মেয়েটির ঘাড়েই দো’ষ চা’পান। তার সঙ্গে যোগ দেন স্কুলের শিক্ষিকা ফারজিয়া বেগম ও স্কুলের আয়া। এ দুজন মা-মেয়ের সামনেই অ’শ্লী’ল সব কথাবার্তা বলতে লাগলেন। এ দৃশ্য স’হ্য করতে পারেনি অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া ওই ছাত্রী। রা’গে-ক্ষো’ভে স্কুলের ছাদে গিয়ে সেখান থেকে লা’ফিয়ে পড়ে সে। এখন গু”রু’তর আহত অবস্থায় হা’সপা’তা’লে শ’য্যা’সায়ী ছাত্রীটি।এ ঘ’টনায় বৃহস্পতিবার ইংরেজির শিক্ষক আতাউর রহমানের বি’রু’দ্ধে থা’নায় মা’ম’লা হলেও এখনো গ্রে’ফ’তার হননি তিনি।

ছাত্রীর পরিবার জানাচ্ছে, মা’ম’লা নিতে পু’লিশ শুরুতে গড়িমসি করেছিল। পরে ঢাকা থেকে কয়েকজন মানবাধিকার কর্মীর প্র’চেষ্টায় পু’লিশ মা’ম’লা নিলেও যৌ”ন হ’য়’রানির ঘ’টনা ধা’মা’চাপা দিতে মা’মুলি ধারায় মা’ম’লাটি লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *